বাগেরহাটে স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার

বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলায় অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে; এ ঘটনায় এক যুবককে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার একটি গ্রামে এ ঘটনার পর শনিবার সকালে সন্দেহভাজন যুবককে আটক করা হয় বলে জানিয়েছেন বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) মো. আসাদুজ্জামান। আটক এজাজুল মোল্লা (২২) উপজেলার একটি গ্রামের বাসিন্দা।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, স্কুলছাত্রীর বাবা-মা মেয়েকে বাড়িতে একা রেখে খুলনায় বেড়াতে যান। এই সুযোগে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে চার যুবক কৌশলে মেয়েটির বাড়িতে ঢুকে তাকে ধারালো অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ফেলে এবং সংঘবদ্ধ ধর্ষণ চালায়। “এক পর্যায়ে মেয়েটি সংজ্ঞাহীন হয়ে গেলে যুবকরা পালিয়ে যায়। শুক্রবার প্রতিবেশীরা অসুস্থ অবস্থায় স্কুলছাত্রীকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। পুলিশ সংবাদ পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে মেয়েটির চিকিৎসার খোঁজ-খবর নেয়।

পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, “মেয়েটি ওই চার যুবককে চিনতে পেরেছে বলে দাবি করেছে। শনিবার সকালে তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, সন্দেহভাজন এজাজুলকে আটক করা হয়। তাকে কচুয়া থানায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। অন্যদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। মেয়েটির পরিবার এখনও মামলা করেনি বলে জানান আসাদুজ্জামান।

বাগেরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসক মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, “মেয়েটিকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার শরীরে নখ ও কামড়ের আচড় রয়েছে।” “প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষার পর পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাবে। বর্তমানে সুস্থ রয়েছে”, যোগ করেন পুলিশ কর্মকর্তা।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন