বাগমারায় এক গৃহবধূ নির্যাতনের শিকার

রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার গোবিন্দপাড়া ইউনিয়নের চাঁইসারা গ্রামের এক গৃহবধূ নির্যাতনের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত প্রায় ১৪ বছর আগে বাগমারা উপজেলার গোবিন্দপাড়া ইউনিয়নের চাঁইসারা গ্রামের মোঃ খয়বর আলীর ছেলে মোঃ হাসান আলীর( ৩০) সাথে পাশ্ববর্তী করখন্ড গ্রামের মৃত আকবর আলীর মেয়ে মোছাঃ মমেনার (২৮) সাথে ইসলামি শরীয়ত মোতাবেক বিবাহ হয়। বিবাহের পর থেকে মমেনার স্বামী ও ননদ মিলে যৌতুকের জন্য তাকে বার বার  শারীরিক ওমানসিক নির্যাতন করে। শারীরিকও মানসিক নির্যাতনের এক প্রর্যায় মমেনার গর্ভে সিয়াম নামে এক ছেলে সন্তান জন্ম গ্রহন করে।

তাতেও তাদের দম্পতি জীবনে সন্তান জন্ম গ্রহন করলে ও পাষন্ড স্বামী হাসান আলীর সহ তার পরিবারের লোকজনের নির্যাতনের পরিমাণ কমে নাই। এক সময় মমেনার পাষন্ড স্বামী হাসান আলী স্ত্রী সন্তান রেখে নিজ ইচ্ছায় ঢাকা গার্মেন্টস চলে যায়। স্বামী হাসান আলী ঢাকা চলে যাওয়ার পর থেকে অভাব অনটনের মধ্যে দিয়ে স্ত্রী মমেনা দিনকাল পার করে। এর মধ্যে হাসান আলী তার স্ত্রী সন্তানের কোন খোঁজ খবর রাখেন না। এভাবেই দীর্ঘদিন ঢাকা থাকা অবস্থা তার প্রথম স্ত্রী মমেনাকে না জানিয়ে আবারও দ্বিতীয় বিয়ে করে স্ত্রী নিয়ে বাড়ি আসেন হাসান আলী।

হাসান আলী দ্বিতীয় স্ত্রী নিয়ে বাড়ি আসার পর থেকে দ্বিতীয় স্ত্রীর কু-পরামর্শে আবারও প্রথম স্ত্রী মমেনার উপর শুরু হয় মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন। এভাবেই প্রতিনিয়ত চলে মমেনার উপর বীভৎস নির্যাতন। মঙ্গলবার ১৯শে অক্টোবর দুপুর ১টার সময় বাজার সদা করা কে কেন্দ্র করে ১ম স্ত্রী মমেনাকে হত্যার উদ্দেশ্য স্বামী হাসান ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী মিলে বেধড়ক ভাবে লাঠি দিয়ে পিটাতে থাকে। স্বামী হাসানের নির্যাতনের নির্মম শিকার হয়ে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকলে তার আপন ভাই তাকে উদ্ধার করে বাগমারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। মমেনার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় জখমের চিহ্ন ও রয়েছে। এ ব্যাপারে বাগমারা থানায় মামলা করার জন্য প্রস্তুতি চলছে।

বার্তা প্রেরক
মোঃ সাইফুল ইসলাম
বাগমারা (রাজশাহী)প্রতিনিধি

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন