ফেনীর সোনাগাজীতে হটলাইন ৩৩৩ ফোন, স্কুলছাত্রীর বাল্যবিবাহ ঠেকালেন এসিল্যান্ড

ফেনীর সোনাগাজীতে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ২টা ৩০মিনিট। বরপক্ষকে আপ্যায়ন করা শেষ। স্থানীয় একটি মন্দিরে বিয়ে পড়ানোর প্রস্তুতি নিচ্ছেন পুরোহিত। বর উপজেলার চর মজলিশপুর ইউনিয়নের বিষ্ণুপুর এলাকার ২২ বছর বয়সী এক তরুণ। পেশায় নর সুন্দর (সেলুন দোকানী)। আর কনে একই উপজেলার একটি বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির এক ছাত্রী। তবে শিক্ষার্থীর এক শুভাকাঙ্ক্ষী রাত ১টার দিকে ফোন করেন ৩৩৩ নম্বরে। এরপর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) লিখন বনিক স্থানীয় ইউপি সদস্য, থানা-পুলিশ ও আনসার নিয়ে রাত ২টা ৩০মিনিটে কনের বাড়ির পাশের ওই মন্দিরে উপস্থিত হন। ভ্রাম্যমাণ আদালত কম বয়সে বিয়ে দেওয়ার চেষ্টার অভিযোগে কনের বাবাকে ৩ হাজার এবং ছেলের বাবাকে ৪ হাজার টাকা অর্থদন্ড দেন। মেয়ে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার আগে বিয়ে দেবেন না এবং অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়েকে বিয়ে করাবেন না মর্মে মুচলেকা দেন  ছেলে-মেয়ের বাবা।

উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) লিখন বনিক বলেন, ৩৩৩ তে কল পেয়ে তিনি রাত ২টা ৩০মিনিটে মন্দিরে উপস্থিত হয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করে উভয়ের পরিবারকে জরিমানা করেন। ওই ছাত্রীর বিয়ে বন্ধ করে ১৮বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত মেয়েকে বিয়ে দেবেনা মর্মে ছাত্রী এবং ছেলের বাবা-মা ও আত্মীয়দের কাছ থেকে অঙ্গিকারনামা নেওয়া হয়েছে। এখন ওই ছাত্রী আবার বিদ্যালয়ে গিয়ে লেখা-পড়া করবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এ এম জহিরুল হায়াত বলেন, ৩৩৩ হটলাইন চালু হওয়ার পর থেকে বাল্যবিবাহের শিকার হতে যাওয়া শিক্ষার্থীর সহপাঠী, আত্মীয় বা প্রতিবেশীরাই নিজ দায়িত্বে তথ্য জানিয়ে দিচ্ছেন। এমনকি মধ্যরাতেও বাল্যবিবাহ বন্ধের জন্য যাচ্ছেন কর্মকর্তারা। মানুষ আরও সচেতন হলে বাল্যবিবাহ শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা সম্ভব।

বার্তা প্রেরক
শেখ আশিকুন্নবী সজীব
ফেনী প্রতিনিধি

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন