টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে দীর্ঘমেয়াদি ঋণসহায়তা প্রয়োজন

শিল্পায়ন ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য অবকাঠামো খাতের টেকসই উন্নয়ন অতি গুরুত্বপূর্ণ। এক্ষেত্রে সহায়তার জন্য দীর্ঘমেয়াদি ঋণসহায়তার কোনো বিকল্প নেই। এ সহায়তা নিশ্চিতে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি খাত ও পুঁজিবাজারের সংশ্লিষ্টতা প্রয়োজন। গতকাল বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) যৌথভাবে আয়োজিত ‘বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিট ২০২১’ শীর্ষক সপ্তাহব্যাপী আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সম্মেলনের ষষ্ঠ দিনে আয়োজিত এক ওয়েবিনারে এমন মন্তব্য করেন বক্তারা।

‘দীর্ঘমেয়াদি ঋণ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে বাংলাদেশের অবকাঠামো খাতে অর্থায়ন ঘাটতি পূরণ’ শীর্ষক এই ওয়েবিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক মুখ্য সচিব ও ক্যাপিটাল মার্কেট স্টাবিলাইজেশন ফান্ডের (সিএমএসএফ) চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান।ডিসিসিআই সভাপতি রিজওয়ান রাহমানের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন প্রাইভেট ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট গ্রুপের (পিজ) চেয়ারম্যান এন্ড্রু বেনব্রিজ, গ্যারাঙ্কোর চেয়ারম্যান ইউকিকো মুরা, গ্যারাঙ্কো এশিয়ার এমডি নিশান্ত কুমার, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ড. আবুল কালাম আজাদ, স্ট্যাডার্ড চার্টার্ড বাংলাদেশের এমডি এবং হেড অব ফাইন্যান্সিয়াল মার্কেট মুহিত রহমান, মেটলাইফ বাংলাদেশের সিইও মোহাম্মাদ আলা উদ্দিন আহমাদ, প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের চেয়ারম্যান এবং সিইও আহসান খান চৌধুরী এবং টেকনাফ সোলারটেকের এমডি নূহের লতিফ খান প্রমুখ।

সালমান এফ রহমান বলেন, অবকাঠামো খাতে টেকসই ও দীর্ঘমেয়াদি ঋণসহায়তাপ্রাপ্তির জন্য আমাদের আরো কৌশলী হতে হবে। বাংলাদেশে একটি কার্যকরী বন্ড মার্কেট চালু করতে হবে। তিনি বলেন, বর্তমানে আমাদের ব্যাংকগুলোতে প্রচুর অলস টাকা রয়েছে, যদি আমরা এ ধরনের অলস টাকা বন্ডে স্থানান্তরিত করতে পারি, তাহলে আমাদের অর্থনীতি সত্যিকার অর্থে উপকৃত হবে। এ লক্ষ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এবং বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর মধ্যকার সমন্বয় বাড়ানো প্রয়োজন বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ডিসিসিআই সভাপতি রিজওয়ান রাহমান বলেন, শিল্পায়ন ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য অবকাঠামো খাতের টেকসই উন্নয়নের কোনো বিকল্প নেই। অবকাঠামো খাতের উন্নয়নে দীর্ঘমেয়াদি ঋণসহায়তা নিশ্চিতকল্পে বেসরকারি খাতকে সম্পৃক্ত প্রয়োজন।মো. নজিবুর রহমান বলেন, অবকাঠামো খাতের উন্নয়নে প্রয়োজন দীর্ঘমেয়াদি ঋণসহায়তা। এ লক্ষ্যে ঋণ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে দেশের বেসরকারি খাতে মধ্যকার পার্টনারশিপ আরো জোরদার করতে হবে। দেশের পুঁজিবাজার এক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বহুজাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান পিজের চেয়ারম্যান এন্ড্রু বেনব্রিজ বলেন, বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের উন্নয়ন  ও এ খাতে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগে আমরা অত্যন্ত আগ্রহী। আমরা এসব সম্ভাবনা নিয়ে এরই মধ্যে একটি সমীক্ষা সম্পন্ন করেছি। তিনি জানান, গত ২০ বছরে প্রতিষ্ঠানটি প্রায় ৪৪০ কোটি ডলার অবকাঠামো খাতের উন্নয়নে বিনিয়োগ করেছে।

গ্যারাঙ্কোর চেয়ারম্যান ইউকিকো মুরা বলেন, স্থানীয় পুঁজিবাজার উন্নয়ন, ঋণসহায়তা প্রদান ও অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগে গ্যারাঙ্কো কাজ করতে আগ্রহী। এসব পদক্ষেপ একটি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ, যেটি জনগণের জীবনমান উন্নয়ন ও দারিদ্র্য বিমোচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।ড. আবুল কালাম আজাদ বলেন, অবকাঠামো খাতের উন্নয়নে আর্থিক সহায়তা প্রদানে সরকারের নিজস্ব সক্ষমতা বাড়ানো প্রয়োজন। পাশাপাশি দীর্ঘমেয়াদি বন্ড চালুর জন্য পুঁজিবাজারের ওপর আরো বেশি মনোযোগী হওয়া প্রয়োজন।এ খাতের উন্নয়নে এককভাবে ব্যাংকিং খাতের ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে আনার আহ্বানও জানান তিনি।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন